১০:৫৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সিংগাইর উপজেলায় চলছে গাজর কাটার কাজ

  • নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট : ০৭:১৭:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ মার্চ ২০২৪
  • 75

আকাশ বিডি নিউজ
চলতি মৌসুমে চমৎকার ফলন পাওয়ায় জেলার সিংগাইর উপজেলায় গাজর কাটা পুরোদমে চলছে, কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে যে তারা এই মৌসুমে ৩৬.১০০ টন উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৯৫০ হেক্টর জমিতে গাজর চাষের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে।গাজরই একমাত্র সবজি যা বিশেষ ধরনের জমিতে জন্মায় এবং সিঙ্গাইর প্রচুর পরিমাণে গাজর উৎপাদনের জন্য পরিচিত।স্থানীয়রা জানান, গাজর একটি স্বল্প সময়ের ফসল এবং বাজারে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।
এ সবজি ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে বলে জানান তারা।সিংগাইর উপজেলার ধল্লা গ্রামের ৫২ বছর বয়সী আব্দুল হক বলেন, গাজর চাষ সহজ এবং এতে সেচ ও অতিরিক্ত সার লাগে না।গাজরের সবুজ পাতাও গবাদি পশুর মাথার জন্য একটি ভালো খাদ্য।
হক বলেন, প্রতিদিন একদল ব্যবসায়ী গ্রামে এসে চাষিদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে যায়।অনেক ট্রাক এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে গাজর বহনের জন্য অপেক্ষা করে কারণ অনেক শ্রমিক, প্রধানত মহিলারা গাজর কাটার কাজে নিয়োজিত।আরেক চাষি মাইনুদ্দিন জানান, তারা তাদের পণ্যের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন প্রতি কেজি এখন বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। বাজারে ৩০- ৩৫ তিনি বলেন, এটি সিংগাইর উপজেলার মানুষের অন্যতম সেরা অর্থকরী ফসল।কৃষি অধিদপ্তর সূত্র বলছেন , গাজর পলি মাটিতে ভালো জন্মায় এবং সিঙ্গাইরের কিছু নির্দিষ্ট এলাকা এই ধরনের মাটি দিয়ে সমৃদ্ধ হয়। মানিকগঞ্জ সিংগাইর গাইর এখন গাজর চাষে আবাদ কারি কৃষকেরা স্বাবলম্বী হচ্ছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

ঢাকা আরিচা মহাসড়কের টেপড়া বাসস্ট্যান্ডে যাত্রী ছাউনি ময়লার ডাস্টবিনে

সিংগাইর উপজেলায় চলছে গাজর কাটার কাজ

আপডেট : ০৭:১৭:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ মার্চ ২০২৪

আকাশ বিডি নিউজ
চলতি মৌসুমে চমৎকার ফলন পাওয়ায় জেলার সিংগাইর উপজেলায় গাজর কাটা পুরোদমে চলছে, কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে যে তারা এই মৌসুমে ৩৬.১০০ টন উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৯৫০ হেক্টর জমিতে গাজর চাষের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে।গাজরই একমাত্র সবজি যা বিশেষ ধরনের জমিতে জন্মায় এবং সিঙ্গাইর প্রচুর পরিমাণে গাজর উৎপাদনের জন্য পরিচিত।স্থানীয়রা জানান, গাজর একটি স্বল্প সময়ের ফসল এবং বাজারে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।
এ সবজি ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে বলে জানান তারা।সিংগাইর উপজেলার ধল্লা গ্রামের ৫২ বছর বয়সী আব্দুল হক বলেন, গাজর চাষ সহজ এবং এতে সেচ ও অতিরিক্ত সার লাগে না।গাজরের সবুজ পাতাও গবাদি পশুর মাথার জন্য একটি ভালো খাদ্য।
হক বলেন, প্রতিদিন একদল ব্যবসায়ী গ্রামে এসে চাষিদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে যায়।অনেক ট্রাক এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে গাজর বহনের জন্য অপেক্ষা করে কারণ অনেক শ্রমিক, প্রধানত মহিলারা গাজর কাটার কাজে নিয়োজিত।আরেক চাষি মাইনুদ্দিন জানান, তারা তাদের পণ্যের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন প্রতি কেজি এখন বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। বাজারে ৩০- ৩৫ তিনি বলেন, এটি সিংগাইর উপজেলার মানুষের অন্যতম সেরা অর্থকরী ফসল।কৃষি অধিদপ্তর সূত্র বলছেন , গাজর পলি মাটিতে ভালো জন্মায় এবং সিঙ্গাইরের কিছু নির্দিষ্ট এলাকা এই ধরনের মাটি দিয়ে সমৃদ্ধ হয়। মানিকগঞ্জ সিংগাইর গাইর এখন গাজর চাষে আবাদ কারি কৃষকেরা স্বাবলম্বী হচ্ছে।